শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪০ অপরাহ্ন

Notice :

দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ডুংরিয়ায় হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু মডেল ভিলেজ’

সুনামকণ্ঠ ডেস্ক ::
গ্রামের আয় বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে উন্নত গ্রামীণ জীবনযাপনের সুযোগ এবং গ্রাম থেকে শহরমুখী স্রোত হ্রাস করতে ‘বঙ্গবন্ধু মডেল ভিলেজ’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ প্রকল্পের আওতায় দেশের ১০টি গ্রামের মানুষ শহরের সব সুযোগ-সুবিধা পাবেন।
জানা গেছে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে তার প্রতি সর্বোচ্চ সম্মান প্রদর্শনের অংশ হিসেবে সমবায় অধিদফতর বঙ্গবন্ধুর সমবায় গ্রাম ধারণা ও বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারের বিশেষ অঙ্গীকার ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ ধারণায় গ্রামের বৈশিষ্ট্য সমুন্নত রেখে ‘বঙ্গবন্ধু মডেল ভিলেজ’ প্রকল্পের প্রস্তাবনা তৈরি করেছে। এর মাধ্যমে গ্রামের বৈশিষ্ট্য সমুন্নত রেখে গ্রামীণ স¤পদের সুষ্ঠু ও সুষম ব্যবহার নিশ্চিত করা, গ্রামীণ কর্মসংস্থান সৃষ্টি, কৃষির আধুনিকায়ন ও যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে উৎপাদন বৃদ্ধি, জৈব জ্বালানির ব্যবহার, যোগাযোগ ও বাজার অবকাঠামো সৃষ্টি, স্বাস্থ্য-শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে কমিউনিটির সচেতনতা বৃদ্ধি, তথ্যপ্রযুক্তিগত অবকাঠামো সৃষ্টির মাধ্যমে সব সেবা সহজলভ্য করা হবে।
দেশের ১০ জেলার ১০ উপজেলার ১০ গ্রামের গড়ে পাঁচ হাজার জন করে মোট ৫০ হাজার মানুষ প্রকল্পটির উপকারভোগী হবেন। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া, ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী, জামালপুরের মাদারগঞ্জ, কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ, সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের ডুংরিয়া গ্রাম, যশোরের মনিরামপুর, রংপুরের মিঠাপুকুর, রাজশাহীর তানোর, বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে।
সমবায় অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, এ প্রকল্পটির মাধ্যমে গ্রামীণ অবকাঠামোতে কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে। ফলে আদর্শমানের উন্নত গ্রাম প্রতিষ্ঠা, গ্রামীণ অতি দারিদ্র্যের হার ৬ শতাংশে নামিয়ে আনা, গ্রামের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, শিক্ষিত, সচেতন ও দায়িত্বশীল নাগরিক সৃষ্টি, গ্রামের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক জাগরণ সৃষ্টি হবে। উপজেলা পর্যায়ের সব দফতরের সরকারি সেবা গ্রামে পৌঁছে দিয়ে সেখানকার জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা হবে। প্রকল্প কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করানোর লক্ষ্যে সংসদ সদস্য, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, উপজেলার বিভিন্ন দফতর ও উপকারভোগীদের সমন্বয়ে বিভিন্ন কমিটি কাজ করবে।
এ প্রকল্পে গ্রামের কৃষিজমির সর্বোচ্চ ব্যবহার, মানবশ্রমকে যন্ত্রের মাধ্যমে প্রতিস্থাপন, উৎপাদন বৃদ্ধি, পোস্ট হারভেস্ট লোকসান কমানো, পানিসাশ্রয়ী প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে পানির অপচয়রোধ বিষয়ে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। এ লক্ষ্যে সরবরাহ করা হবে কৃষি যন্ত্রপাতি। প্রাথমিকভাবে প্রতি গ্রামে ৩০০ জন কৃষককে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে। প্রতিটি গ্রামের জন্য কৃষি যন্ত্রপাতি কেনা হবে।
বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি এবং আধুনিক ও মানসম্মত মাছ চাষের শ্রেষ্ঠ অনুশীলনের জন্য গ্রামে দুটি প্রদর্শনী পুকুর তৈরি করা হবে।
সারা বছরের আয় নিশ্চিত করার লক্ষ্যে অফফার্ম কার্যক্রম হিসেবে গরু, ছাগল ও হাঁস-মুরগি পালনের মাধ্যমে মাংস ও দুগ্ধ উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে আধুনিক ও মানসম্মত খামার ব্যবস্থাপনার কৌশলের ওপর গ্রামের নারী ও বেকার যুবকদের প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এ লক্ষ্যে গ্রামে প্রদর্শনী খামারে শ্রেষ্ঠ অনুশীলনের জন্য একটি মধ্যম আকৃতির খামার তৈরি করা হবে। এছাড়া প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনবলের চাহিদার আলোকে ব্যক্তিপর্যায়ে চাহিদার ভিত্তিতে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিনাসুদে ঋণ দেয়া হবে, ৩ শতাংশ সার্ভিস চার্জসহ সেই ঋণ ফেরত দিতে হবে। ঋণ গ্রহণের তিন মাস পর থেকে ঋণের কিস্তি পরিশোধ শুরু হবে। এছাড়া কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াকরণ, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ এবং উদ্যোক্তা উন্নয়ন ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হবে। ৩ শতাংশ সার্ভিস চার্জসহ ওই ঋণ ফেরত দিতে হবে। এক্ষেত্রে ঋণ গ্রহণের ছয় মাস পর থেকে ঋণের কিস্তি পরিশোধ শুরু হবে।
এ প্রকল্পে নির্বাচিত গ্রামের সব শ্রেণি-পেশার জনগণকে অন্তর্ভুক্ত করে গ্রাম সমবায় সমিতি গঠন করা হবে। সমিতিকে কেন্দ্র করে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত কমিউনিটি ভবন নির্মাণ করা হবে। কমিউনিটি ভবনে বঙ্গবন্ধু পাঠাগার ও বঙ্গবন্ধু কর্নার, কমিউনিটি হল, সমিতির অফিস, সভাকক্ষ, ক¤িপউটার কেন্দ্র ও ডিজিটাল সেন্টার, স্বাস্থ্যসেবা প্রদান কেন্দ্র, বিভিন্ন কৃষি যন্ত্রপাতি রাখার গোডাউন, সংরক্ষণাগার, প্রক্রিয়াকরণ কেন্দ্র এবং প্রয়োজনীয় সুযোগ সৃষ্টি করা হবে।
এ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে গ্রামের প্রতি ইঞ্চি জমি আবাদের আওতায় আসবে অর্থাৎ এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি থাকবে না। রাস্তার ধার, নদীর পাড়, মাঠ এবং বাড়ির আঙিনায় আবাদ করা হবে। কোনো পুকুর মাছ চাষহীন থাকবে না। যৌথ পদ্ধতিতে চাষাবাদ হবে। কৃষিতে যন্ত্রের ব্যবহারের প্রচলন থাকবে। পরিবেশবান্ধব ও পানিসাশ্রয়ী সেচ ব্যবস্থা থাকবে। কীটনাশক ও রাসায়নিক সারের পরিমিত ব্যবহার থাকবে এবং জৈব বালাইনাশকের ব্যবহার অনুশীলন করা হবে। কৃষি বহুমুখীকরণ চর্চা থাকবে। কৃষিপণ্যের বাজার নেটওয়ার্ক থাকবে। ফসলের সময়ের বাইরে (অফ-সিজন) কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে পশুপালন, ক্ষুদ্র ব্যবসা ও কুটির পণ্য উৎপাদন ব্যবস্থা থাকবে।
এছাড়া গ্রামীণ অতি দরিদ্র ৬ শতাংশে নেমে আসবে। গ্রামে অপরাধ প্রবণতা উল্লেখযোগ্য হারে কমবে। থাকবে না মাদক গ্রহণকারী ও মাদক কারবারি। নিষিদ্ধ থাকবে বাল্যবিয়ে ও যৌতুক প্রথা। বিরোধ নি®পত্তি করা হবে সালিশ-মীমাংসার মাধ্যমে। কমে যাবে মামলা-মোকদ্দমার হার। গ্রামের লোক পাবে শতভাগ চিকিৎসা সুবিধা। স্কুলে ভর্তির হার শতভাগ এবং ঝরে পড়ার হার কমবে উল্লেখযোগ্য হারে। নারীর প্রতি সহিংসতা থাকবে না। কোনো শিশু ও নারী পুষ্টিহীন থাকবে না। থাকবে ঘরে ঘরে বিদ্যুতের ব্যবস্থা। গ্রামের জনগণ তথ্যপ্রযুক্তিগত সুবিধা লাভ করবে। জনগোষ্ঠী উজ্জীবিত থাকবে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্ধুদ্ধকরণের মাধ্যমে সামাজিক সংহতি ফিরিয়ে আনা হবে। পরিবেশ সুরক্ষায় কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে শতভাগ পরিবেশবান্ধব গ্রাম হিসেবে আবির্ভূত হবে প্রকল্পভুক্ত ১০ গ্রাম।
এ প্রকল্পের বিষয়ে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, গ্রামকে শহরের পর্যায়ের নাগরিক সুবিধা দেয়া হবে। আমাদের মূল কথা হলো, বঙ্গবন্ধুর যে ভাবনা ছিলে, সেটি লক্ষ্য করে আমাদের নির্বাচনী ইশতেহার ছিল, আমরা গ্রামকে উন্নত শহরের সুবিধাগুলো দেব। সেটিকে মাথায় রেখে আমরা একটি টিম করে দিয়েছি, তারা এগুলো তৈরি করে আমাদের কাছে নিয়ে আসবে। প্রথমে যে ১০ গ্রাম পাইলট প্রকল্পের আওতাভুক্ত হবে, সেখানে শহরের সুবিধাগুলো গ্রামে বসে পাবে। যেমন শিক্ষার জন্য স্কুলগুলো মানস¤পন্ন হবে, ইন্টারনেট সংযোগ দেব, যেন তারা আউটসোর্সিংয়ের কাজ করতে পারে। প্রতিটি বাড়িতে স্যানিটারি ব্যবস্থা করে দেব, শতভাগ বিদ্যুৎ দেব (যেটি এখনো অনেকক্ষেত্রে আছে), কমিউনিটি সেন্টার হবে, যেখানে বসে গ্রামের লোকরা উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করবে। এমন অনেক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।
ধাপে ধাপে মডেল গ্রামের সংখ্যা বাড়বে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা তো পাইলট প্রজেক্ট, প্রধানমন্ত্রী এর কার্যক্রম দেখে যদি সন্তুষ্ট হন তখন সেটি বাড়তে পারে। প্রধানমন্ত্রী আমাদের বলেছেন যে, প্রাথমিকভাবে এই ১০টি প্রকল্প মন দিয়ে করতে হবে এবং এগুলো যদি ফলপ্রসূ হয়, তাহলে ধীরে ধীরে আমরা সব গ্রামকে এ পর্যায়ে নিয়ে আসব। -জাগো নিউজ, বাংলাদেশ প্রতিদিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী