মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৯:১০ অপরাহ্ন

Notice :

আটকে আছে গ্রামপুলিশের ভাতা

স্টাফ রিপোর্টার ::
তাহিরপুরে গ্রামপুলিশ সদস্যরা ৩৫ মাস ধরে হাজিরা ভাতা এবং ১৩ মাস ধরে ইউনিয়ন পরিষদ অংশের ভাতা পাচ্ছেন না। দীর্ঘদিন ধরে এ ভাতা না পেয়ে পরিবার-পরিজন নিয়ে তারা অর্থকষ্টে ভোগছেন। বাংলাদেশ গ্রাম পুলিশ কর্মচারী ইউনিয়ন তাহিরপুর শাখার উদ্যোগে অনুষ্ঠিত গ্রাম পুলিশ সমাবেশে তারা নিজেদের কষ্টের কথা বলতে গিয়ে এ সকল তথ্য জানান। মঙ্গলবার দুপুরে সদর ইউনিয়ন পরিষদ হলরুমে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
সমাবেশে গ্রাম পুলিশ সদস্যরা জানান, তাহিরপুর উপজেলায় ৫৯ জন গ্রাম পুলিশ সদস্য রয়েছেন। এর মধ্যে ৭ জন দফাদার ও ৫২ জন মহল্লাদার পদে কাজ করছেন। কিন্তু তারা ৩৫ মাস ধরে হাজিরা ভাতা আর ১৩ মাস ধরে ইউনিয়ন পরিষদ অংশের ভাতা পাচ্ছেন না। এ কারণে উপজেলার গ্রাম পুলিশ সদস্যরা তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর দিনযাপন করছেন। প্রত্যেক গ্রাম পুলিশ মাসিক ১২শত টাকা করে হাজিরা ভাতা পান। হাজিরা ভাতা উপজেলা প্রশাসন দিয়ে থাকে। আর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দফাদার মাসিক ৩৫০০ টাকা এবং মহল্লাদার মাসিক ৩২৫০ টাকা করে পেয়ে থাকেন। তবে সরকারি অংশের ভাতা দফাদার ৩৫০০ টাকা এবং মহল্লাদার ৩২৫০ টাকা নিয়মিত পাচ্ছেন বলে জানান তারা।
মহল্লাদার বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আছাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম সরোয়ার লিটন, ইউপি সদস্য মতিউর রহমান মতি, হুমায়ুন কবীর, সবুজ আলম ও অর্পণা তালুকদার।
মহল্লাদার আব্দুল মোছাব্বের বলেন, আমরাই সরকারের সকল কর্মসূচি, সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রামে, হাটে, মাঠে ঘুরে পায়ে হেঁটে হেঁেট বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে ডাল-ভাত খেতে পারি না। আমরা চাই আমাদের বকেয়া ভাতা দ্রুত পরিশোধ করা হোক।
উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ সচিব মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, গ্রামপুলিশগণ অর্থে কষ্টে রয়েছেন বিষয়টি আমরা জানি। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদের রাজস্ব আয় কম থাকায় তা যথাসময়ে পরিশোধ করতে পারছি না। তবুও আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।
তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন বলেন, আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করব ইউনিয়ন পরিষদ অংশের বকেয়া ভাতা পরিশোধ করার।
তাহিরপুর উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ আমজাদ হোসেন বলেন, আমি রুটিন দায়িত্ব পালন করছি। তবুও আমি স্যারের সাথে এ বিষয়ে কথা বলব।
সমাবেশ শেষে গ্রাম পুলিশ কর্মচারী ইউনিয়ন তাহিরপুর উপজেলা শাখার কমিটি গঠন করা হয়। এতে সভাপতি হিসাবে মনোনীত করা হয়েছেন বাদাঘাট ইউনিয়নের মহল্লাদার মুক্তিযোদ্ধা মো. আছাল উদ্দিন। সহসভাপতি বালিজুরী ইউনিয়নের দফাদার মোক্তার আলী, সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন আব্দুল মোছাব্বির, সহসাধারণ সম্পাদক গোলাপ মিয়া, ক্যাশিয়ার নির্বাচিত হয়েছেন তাহিরপুর সদর ইউনিয়নের মহাল্লাদার আবুল কালাম, প্রচার সম্পাদক দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের আব্দুল কুদ্দুছ, সহ প্রচার সম্পাদক দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়নে দফাদার সুনীল দাশ। মহিলা সম্পাদিক পদে মনোনীত হয়েছেন ফাতিমা বেগম ও সহ মহিলা সম্পাদিক পদে শেফালী দাশ, ক্রীড়া সম্পাদক পদে মোশাহিদ মিয়া, সহক্রীড়া সম্পাদক পদে তুষার মিয়া। এছাড়াও সদস্য পদে আছেন নিয়তি বালা সিংহ, আফিয়া বেগম, বিদু বর্মণ, দীপক বর্মণ, ময়না দাশ, সুভাষ তালুকদার, আলী আসগর, মুক্তুল মিয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী