মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন

Notice :
«» বড় হতে হলে বিসিএস লাগবে তা নয়, মানুষ হিসেবে বড় হতে হবে : ড. মোহাম্মদ সাদিক «» উন্নয়নবিরোধী ষড়যন্ত্রকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে : এমপি রতন «» জেলা প্রশাসনের অনন্য উদ্যোগ : হাওরপাড়ে শিশুর পাঠে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ «» স্বাস্থ্যসেবায় গ্রামের মানুষ অবিচারের শিকার : পরিকল্পনামন্ত্রী «» নিজেদের খেলার মাঠ ফিরে পেল গারোরা «» সকল উপজেলা ভূমি অফিসে ই-নামজারি শুরু : ভূমি নামজারি হবে ২৮ দিনেই «» সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত «» ভারতীয় রুপিসহ যুবক গ্রেফতার «» শহরে বখাটের ছুরিকাঘাতে দুই ভাই রক্তাক্ত «» আলহেরা মাদ্রাসায় শ্রেণিকক্ষ নির্মাণকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

সমাজসেবী আবুল কালাম আজাদ ছিলেন অসহায় মানুষের বন্ধু

:: অণীশ তালুকদার বাপ্পু ::
কিছু মানুষ তাঁর জীবনকে সমাজ ও সমাজের মানুষের জন্য উৎসর্গ করেন আপন কর্মে। নিজের জীবনকে অপরের তরে বিলিয়ে দিয়ে মৃত্যুর পর অমরত্ব লাভ করেন। পৃথিবীতে জন্মের একটা দাগ রেখে যান। এই দাগ হলো কর্মের দাগ।
ছমেদ নগর বনগাঁও সুনামগঞ্জের ঐতিহ্য ও ইতিহাসকে বর্ণিল করতে যে সকল গুণীজন তাঁদের জীবনের শ্রেষ্ঠতম সময় মানুষের জন্য উৎসর্গ করেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম একজন ছিলেন শ্রদ্ধাভাজন সাবেক সদর উপজেলার সমাজ সেবা কর্মকর্তা মরহুম আবুল কালাম আজাদ। তিনি ছিলেন রঙ্গারচর ইউনিয়ন ভবন কমপ্লেক্সেরও ভূমি দাতা। তিনি ছমেদ নগর বনগাঁও গ্রামে ১৯৭৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন। পাঁচ ভাই, চার বোনের মধ্যে তিনি ছিলেন ৭ নম্বর। মাত্র ২১ দিনের একটি সন্তান রেখে তিনি অকালে ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। উনি উনার নিজ পরিবার এবং সন্তানের ভবিষ্যৎ চিন্তা না করে যতদিন জীবিত ছিলেন ততদিন সমাজের অসহায় মানুষের জন্য সেবা করে গেছেন। মৃত্যুকালে তিনি একটা ছেলে রেখে যান তার নাম তাহমিদ আজাদ। তাঁর রত্নগর্ভা মা ছিলেন বনগাঁও নূরানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার ভূমিদাতা।
মরহুম আবুল কালাম আজাদ ছিলেন গরিব-অসহায় মানুষের বন্ধু। যার অকাল প্রয়াণে তাঁর গ্রামের মানুষ আজো কাঁদেন।
ব্যক্তিগত তথ্য :
আবুল কালাম আজাদ, জন্ম: ১/৩/১৯৭৭ ইং, পিতা : আব্দুল হান্নান, মাতা : জহুরা বেগম।
লেখাপড়া :
প্রাথমিক: বনগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে (১৯৮০-৮৫), দাখিল: দ্বীনি সিনিয়র আলীম মাদ্রাসা (১৯৮৬-১৯৯১), আলীম : দ্বীনি সিনিয়র আলীম মাদ্রাসা (১৯৯১-১৯৯২), এমএসি: বিষয়: সমাজকর্ম (১৯৯৩-৯৬) শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট।
কর্মজীবন :
এ.টি.ও. (অতিরিক্ত) বিশ্বনাথ, শিক্ষা অফিসার (২০০৫-২০০৮); সমাজসেবা অফিসার সদর উপজেলা (ভারপ্রাপ্ত), ছাতক-দোয়ারাবাজার, সাল: ( ২০০৮-২০১০)।
শিক্ষানুরাগী :
মরহুম আবুল কালাম আজাদ ছিলেন একজন শিক্ষানুরাগী মানুষ। নিজ এলাকায় শিক্ষা প্রসারের জন্য তিনি একটি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ছমেদ নগর বনগাঁও, মঙ্গলকাটা, রঙ্গারচর ইউনিয়নে চৌদ্দগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা এবং দাতা ছিলেন।
অকাল প্রয়াত তরুণ সমাজ সেবক মরহুম আবুল কালাম আজাদের প্রতি বিনশ্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করছি।
এমন মহৎপ্রাণ ব্যক্তি বারবার জন্ম নেন না। আবুল কালামের আজাদের মতো মানুষদের কর্ম মানুষের হৃদয়ে আমৃত্যু অমর হয়ে থাকবেন। যুগের পর যুগ প্রজন্মের পর প্রজন্ম আবুল কালাম আজাদের কর্মময় জীবনের স্মৃতিচারণ চিরসজীব হয়ে থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী