বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ১২:৩৬ অপরাহ্ন

Notice :

বিশ্ববিদ্যালয় পেল সুনামগঞ্জ : আনন্দে ভাসছে জেলাবাসী

বিশেষ প্রতিনিধি ::
সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইনের খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার (৩০ ডিসেম্বর) মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের খসড়ার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০১৯ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ আইনেও ৫৫টি ধারা রাখা হয়েছে। এতেও চ্যান্সেলর, ভাইস চ্যান্সেলর, ট্রেজারার, সিন্ডিকেট, সিনেট – এগুলোর নিয়োগ কীভাবে হবে তার বিধান রাখা হয়েছে। একাডেমিক কাউন্সিল, অর্থ কমিটির বিষয়ে বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে।
সুনামগঞ্জে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হলেও কোথায় হবে তা এখনও নির্ধারিত হয়নি বলেও জানান খন্দকার আনোয়ার।
সোমবারের মন্ত্রিসভায় সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে কিশোরগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয় আইনের খসড়া নীতিগতভাবে অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা। এই বিশ্ববিদ্যালয়টি হবে কিশোরগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার বউলাই ইউনিয়নে প্রতিষ্ঠিত হবে। এ দুটি নিয়ে দেশে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা দাঁড়াল ৫০-এ।
এদিকে, জেলাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়টি অনুমোদন লাভ করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানকে অভিনন্দন জানিয়ে বিভিন্ন স্থানে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করা হয়েছে। জেলাবাসীর পক্ষ থেকে এ উপলক্ষে আগামী ৯ জানুয়ারি আনন্দ মিছিল করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
জানা গেছে, পরিকল্পনামন্ত্রী ও সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এমএ মান্নানের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল সুনামগঞ্জে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা। গত জাতীয় নির্বাচনের শেষ সভায় তিনি এই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নির্বাচনী এলাকাসহ পুরো জেলার সাধারণ মানুষকে। ওই সভায় তিনি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ, ছাতক সুনামগঞ্জ-রেললাইন সম্প্রসারণ এবং সুনামগঞ্জ-মোহনগঞ্জ রেললাইন চালু, সুনামগঞ্জ নেত্রকোণা সড়ক নির্মাণসহ কয়েকটি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এর আগেও তিনি দশম সংসদে এই বিষয়ে জনগণকে কথা দিয়েছিলেন।
সোমবার দুপুরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইনের খসড়া অনুমোদন হওয়ার খবর সুনামগঞ্জে এসে পৌঁছলে বিভিন্ন স্থানে মিষ্টি বিতরণ ও শোভাযাত্রা হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানকে অভিনন্দন জানিয়ে লেখালেখি করছেন মানুষজন। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রকল্পটি প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দেওয়ায় তাকে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকেই একটি কবিতা লিখেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী ও সুনামগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য এমএ মান্নান এমপি।
অনুমোদনের খবরে সোমবার বিকেলে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের শান্তিগঞ্জ ও জগন্নাথপুরে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ হয়েছে। আনন্দ মিছিলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ছাড়াও সাধারণ মানুষজন অংশ নেন। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে প্রকল্প অনুমোদন করানোয় পরিকল্পনা এমএ মান্নানকে কৃতজ্ঞতা জানান।
সুনামগঞ্জ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদনের অনুভূতি প্রকাশে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান সুনামকণ্ঠকে বলেন, বঙ্গকন্যা শেখ হাসিনার প্রতি হাওরবাসীর পক্ষে আনন্দে আমি কেবিনেট সভায় বসেই একটি কবিতা লিখেছি। আমাদের স্বপ্নের বাস্তবায়ন ঘটিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি চান হাওর জাতীয় উন্নয়নে সমতায় ফিরুক। হাওর এলাকার কোন প্রকল্প গেলে তিনি সেটি আটকে রাখেন না। আমরা তাঁর কাছে চিরঋণী।
তিনি আরো বলেন, সুনামগঞ্জবাসীকে দেওয়া অঙ্গীকার রাখতে পেরেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হাওরবাসীর প্রতি অত্যন্ত দরদী এবং আমাদের হাওর এলাকার জন্য কল্যাণকর কোন প্রকল্প তাঁর কাছে উপস্থাপন করা হলে তিনি সানুগ্রহে তা অনুমোদন প্রদান করে থাকেন। ইতিমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিকতায় সুনামগঞ্জে “বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল” এবং “সুনামগঞ্জ টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট”-এর নির্মাণকাজ এগিয়ে চলছে। এছাড়া সারা জেলায় সার্বিক উন্নয়নে ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী