শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:৫১ পূর্বাহ্ন

Notice :

ধর্মপাশা ও মধ্যনগর আ.লীগ : সম্মেলন নিয়ে উত্তেজনা

বিশেষ প্রতিনিধি ::
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলন নিয়ে পাল্টাপাল্টি প্রস্তুতি কমিটি গঠনের ঘটনা ও সর্বশেষ আজকের মধ্যনগর থানা সম্মেলন না করার জন্য সংবাদ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা বিরাজ করছে। উপজেলার মধ্যনগর থানায় গত ৪ নভেম্বর এর জের ধরে হামলা ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন সম্মেলন পণ্ড করতেই আলাদা কমিটি দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছে একটি পক্ষ। আগামী ১০ নভেম্বর ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হওয়ার কথা ও আজ শুক্রবার মধ্যনগর থানা কমিটি হওয়ার কথা। সম্মেলনের একদিন আগেই একপক্ষ সংবাদ সম্মেলন করে ৬ দফা দাবি জানিয়েছে।
জানা গেছে, ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন। এই উপজেলা এমপির নেতৃত্বে একটি পক্ষ এবং রফিকুল হাসান চৌধুরী, আলমগীর কবির, শামীম আহমদ মুরাদসহ স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাদের আরেকটি বলয় রয়েছে। সম্প্রতি এমপি বিরোধী বলয়ের নেতারা সক্রিয় হয়ে ওঠেছেন।
জেলা আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ অক্টোবর কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনের উপস্থিতিতে দুই বলয়ের নেতৃত্বেই সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন ৩৪ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির অনুমোদন দেন। এতে আহ্বায়ক করা হয় বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর প্রয়াত আব্দুল হেকিম চৌধুরীর সন্তান রফিকুল হাসান চৌধুরীকে। কমিটি গঠনের পরই ওই প্রস্তুতি কমিটি বিভিন্ন ইউনিয়নে ও উপজেলায় একাধিক কর্মসূচি পালন করেছে। এই উপজেলার অন্তর্গত মধ্যনগর থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন উপলক্ষে গত ১৭ অক্টোবর ২৫ সদস্য বিশিষ্ট সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়েছে গিয়াস উদ্দিন নূরীকে আহ্বায়ক করে। আজ ৮ নভেম্বর এই থানায় সম্মেলন হওয়ার কথা। গত ৪ নভেম্বর আসন্ন সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আনন্দ মিছিলে হামলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আক্রান্ত নেতা আজিম মাহমুদ। গত শুক্রবার উপজেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আজহারুল ইসলাম দিদার ও সাবেক উপজেলা সভাপতি মনীন্দ্র চন্দ্র তালুকদারকে আহ্বায়ক করে পৃথক সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন হয়েছে।
এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, ধর্মপাশা উপজেলা ও থানায় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পর নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে। সম্মেলনকে ঘিরে উৎসাহ বিরাজ করছে তৃণমূলে। কিন্তু হঠাৎ করে ধর্মপাশায় পাল্টা সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির ঘোষণায় তারা হতাশ হয়েছেন।
ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য আলমগীর কবির বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক গঠনতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করেছেন। আমরা জেলার নির্দেশনা অনুযায়ী তৃণমূলে সম্মেলন করে সফলভাবে উপজেলা সম্মেলনের জন্য কাজ করছি। কিন্তু একটি পক্ষ সম্মেলন পণ্ড করার চেষ্টা করছে। তৃণমূল নেতাকর্মীরা তাদের প্রতিরোধ করতে প্রস্তুত।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবীর ইমন বলেন, জেলা আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনের নেতৃত্বে আমরা সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি করে দিয়েছি। তারা তৃণমূলে কাজ করে সম্মেলনের পরিবেশ সৃষ্টি করেছেন। এখন এমপি সাহেব তার কিছু লোক দিয়ে সংগঠনের বিরুদ্ধে গিয়ে পাল্টা কমিটি করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছেন। তিনি আবার শোকজপ্রাপ্ত ও অনুপ্রবেশকারীদের দিয়ে ওই প্রস্তুতি কমিটি দিয়েছেন। আমরা এসব বিষয় কেন্দ্রকে অবগত করব। নির্ধারিত সময়েই উপজেলা ও থানা সম্মেলন হবে বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী