শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৩:৪৯ অপরাহ্ন

Notice :

নৌপথে চাঁদাবাজির প্রতিবাদে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার ::
জামালগঞ্জ উপজেলার সুরমা ও বৌলাই নদীতে ব্যবসায়ী ও শ্রমিকদের কাছ থেকে টোল আদায়ের নামে বেপরোয়া চাঁদাবাজি হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন বালু-পাথর, কয়লা শ্রমিকরা। রোববার দুপুরে জামালগঞ্জ উপজেলার সুরমা নদীর পূর্ব পাড়ে গজারিয়া বাজারে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। মানববন্ধনে বালু-পাথর, কয়লা, নৌ-শ্রমিকদের পাশাপাশি বাজারের ব্যবসায়ী ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা অংশ নেন।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন জামালগঞ্জ উপজেলার ফেনারবাঁক ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আসাদ আলী, প্রাক্তন ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান, ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আলী আহমদ, ৪নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেন, সাবেক ইউপি সদস্য সাহাব উদ্দিন, গজারিয়া বাজারের ব্যবসায়ী মাওলানা এমদাদুল হক, শ্রমিকনেতা কামরুল ইসলাম, প্রবাল মিয়া, গোলাপ মিয়া, নৌযানের সুকানী বশির আহমদসহ স্থানীয় লোকজন।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, সুরমা ও বৌলাই নদী পথে টোল আদায়ের নামে প্রভাবশালী চক্র প্রতিদিন চাঁদাবাজি করে আসছে। এতে বালু পাথর, কয়লা ও সাধারণ শ্রমিকরা হয়রানি শিকার হচ্ছে। চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম্যে নৌপথের সকল শ্রমিকরা প্রতিনিয়ত হয়রানি ও মারধরের শিকার হয়। চাঁদাবাজির ফলে শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।
বালু-পাথর ও নৌ শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন, ‘বিআইডব্লিউটিএ’র নাম ভাঙিয়ে চাঁদাবাজরা সুরমা ও বৌলাই নদীতে টোল আদায়ের নামে প্রতিদিন চাঁদা আদায় করছেন। তারা প্রভাব খাটিয়ে নদী পথে বালু পাথর ও কয়লা পরিবহনকারী নৌযান থেকে চাঁদা আদায় করে। নদীর তীরে বালু-পাথর মজুদ করলে ও বিক্রি করলে তাদেরকে প্রতি ফুটে প্রায় দুই টাকা চাঁদা দিতে হয়। চাঁদাবাজির কারণে নদী তীর ও বালু-পাথর ও কয়লার সাথে জড়িত শ্রমিকরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন। বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ আমাদের জানিয়েছেন জামালগঞ্জের সুরমা ও বৌলাই নদীতে তাদের কোনো ইজারাদার নেই। কাউকে ইজারা দেয়া হয়নি। কিন্তু চাঁদাবাজরা গজারিয়া বাজারের পার্শ্ববর্তী সুরমা ও বৌলাই নদীতে চাঁদা উত্তোলন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী