সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন

Notice :

টাঙ্গুয়ার উন্নয়ন চাই

যেনতেন যা-একটা-কীছু হলেই আজকাল লোকে রাস্তায় কাতার দিয়ে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে। কিন্তু কী কারণে জানি না, বোধ করি কোনও অদ্ভুত উপায়ে, জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ কোনও বিষয় এই জনসচেতনতার অন্তর্ভুক্ত হতে পারছে না। কেউ বুঝতেই পারছে না বিষয়টি পিছিয়ে পড়া জনজীবনকে দ্রুতগতিতে উন্নতির দ্বার প্রান্তে নিয়ে যাবার চাবিকাঠি হয়ে উঠতে পারে অনায়াসে।
অবস্থাটা একটু বিবেচনা করে দেখা দরকার। একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের কোনও এক কর্মচারীর নিয়োগ বাতিলের জন্যে জনচেতনা জাগ্রত হচ্ছে, তারা ক্ষোভ প্রকাশ করছে মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে। অথচ সমাজকে স্থবির করে রেখেছে যে-কার্যক্রমের বাস্তবায়ন সে-কাজটা, কর্তৃপক্ষীয় প্রতিশ্রুতি থাকার পরও, বছরের পর বছর আটকে থাকার বিরুদ্ধে জনসচেতনতা জাগ্রত হচ্ছে না। এটি একটি অবাক করার মতো প্রসঙ্গই বটে। স্থবিরতা কিংবা দীর্ঘসূত্রিতারও একটা মাত্রা থাকা দরকার। কেন জানি লোকেরা বুঝতে পারছে না, তাদের জীবনকে উন্নত করার পক্ষে, সুখিসমৃদ্ধ করার পক্ষে ওই স্থবির হয়ে পড়ে থাকা প্রতিশ্রুত কাজটি কতোটা উপকারি। প্রকৃতপ্রস্তাবে সাধারণ মানুষের জীবনটাই এরকম যে, বর্তমান আর্থসামাজিক ব্যবস্থার অধীনে এভাবেই সাধারণ মানুষের চিন্তাচেতনা রহস্যজনকভাবে নিয়ন্ত্রিত থেকে যাচ্ছে। যখন কোনও কাজ জনজীবনের উন্নয়নের জন্য অপরিহার্য হয়ে উঠে এবং বছরের পর বছর সেটা কর্তৃপক্ষীয় উপেক্ষার শিকার হয়ে পড়ে থেকে প্রকারান্তরে জাতীয় জীবনকে পিছিয়ে দেয় তখন লোকেরা সেটা লক্ষ্য করে না এবং সে-কাজটা অবিলম্বে সম্পূর্ণ করার দাবিতে রাস্তায় সারি দিয়ে দাঁড়ায় না, মানববন্ধন করে না।
আসলে মানববন্ধন করা উচিত টাঙ্গুয়ার বাস্তবসম্মত প্রাযুক্তিক উন্নয়নের ব্যবস্থা বাস্তবায়িত করার দাবিতে। ৯ বছর আগে তাহিরপুর এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন টাঙ্গুয়ার উন্নয়ন করবেন। সেই প্রতিশ্রুত কাজ আজও অবধি স্থবির হয়ে আছে বা স্থবির করে রাখা হয়েছে। টাঙ্গুয়ার উন্নয়ন কাজের সেই প্রতিশ্রুতির বরাত দিয়ে দৈনিক সুনামকণ্ঠে লেখা হয়েছে, ‘৯ বছরেও আলোর মুখ দেখেনি প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি।’ আমরা চাই : টাঙ্গুয়া সংক্রান্ত প্রধানমন্ত্রীর সেই প্রতিশ্রুত কাজ যথাযথ কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে অচিরেই বাস্তবায়নের যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। আর সেটা পূর্ণ করার লক্ষ্যে কার্যক্রম গ্রহণ করার জন্যে রাজনীতিক সামাজিক সমাজসেবক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবর্গকে আহ্বান জানাই। আন্দোলনের ডাক দেই। ভুলে গেলে চলবে না, পরিবেশ-পর্যটনবান্ধব উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে টাঙ্গুয়াকে সমৃদ্ধ করে গড়ে তুললে কেবল সুনামগঞ্জ জেলা নয় সমগ্র বাংলাদেশ সে-উন্নতির স্পর্শে নতুন করে জেগে উঠবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী