বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ০২:৪৬ পূর্বাহ্ন

Notice :

ধর্মপাশা খাদ্যগুদাম : ‘বস্তা না থাকা’র কারণ দেখিয়ে ধান সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ

ধর্মপাশা প্রতিনিধি ::
ধর্মপাশা খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহের জন্য পর্যাপ্ত বস্তা না থাকার কারণ দেখিয়ে সংশ্লিষ্টরা গত দুইদিন ধরে সরকারি ন্যায্যমূল্যে ধান সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ রেখেছেন। এতে কৃষকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দিয়েছে।
উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ মে থেকে এই উপজেলার ধর্মপাশা ও মধ্যনগর খাদ্যগুদামে সরকারি ন্যায্যমূল্যে কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু হয়। প্রথম পর্যায়ে এ দুটি গুদামে বরাদ্দ দেওয়া হয় ৯২২ মেট্রিক টন এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে বরাদ্দ দেওয়া হয় ১হাজার ৫৩৭ মেট্রিক টন। প্রতিকেজি ধান ২৬ টাকা দরে একজন কৃষক সর্বনি¤œ ১২০ কেজি, সর্বোচ্চ একটন ধান গুদামে বিক্রি করতে পারবেন। গত মঙ্গলবার থেকে আকস্মিকভাবে ধর্মপাশা খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এতে করে কৃষকেরা খাদ্যগুদামে ধান নিয়ে আসলেও বস্তা নেই কারণ দেখিয়ে সংশ্লিষ্টরা কৃষকদের কাছ থেকে ধর্মপাশা খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহ করছেন না। ফলে ধান নিয়ে কৃষকেরা বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন কৃষক বলেন, এই গুদামে ধান সংগ্রহের জন্য বস্তা নেই এমনটি আগে জানিয়ে দিলে গুদামের সামনে ধান নিয়ে এসে আবার তা বাড়িতে ফেরত নিয়ে যেতে হতো না। যাদের অবহেলার কারণে এই দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।
উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক সেলিম হায়দারের সঙ্গে এ নিয়ে যোগাযোগ করা হলে এ ব্যাপারে তিনি কোনো কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
ইউএনও মোহাম্মদ ওবায়দুর রহমান বলেন, দুইদিন ধরে ধর্মপাশা খাদ্যগুদামে ধান সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে এই বিষয়টি উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক আমাকে জানাননি। কী কারণে বন্ধ রয়েছে সেটি খোঁজ নিয়ে দেখবো। কৃষকেরা যাতে কোনো দুর্ভোগ বা হয়রানির শিকার না হয়ে সরকারি ন্যায্য মূল্যে গুদামে ধান বিক্রি করতে পারেন সেজন্য যতদ্রুত সম্ভব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
সুনামগঞ্জ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জাকারিয়া মোস্তফা বলেন, ধর্মপাশা গুদামটিতে বস্তা না থাকায় ধান সংগ্রহ কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী