,

Notice :

নির্বাচনে প্রভাবের আশঙ্কা : বিভিন্ন উপজেলায় বিএনপি ছেড়ে আ. লীগে যোগ দিচ্ছেন নেতাকর্মীরা

বিশেষ প্রতিনিধি::
জাতীয় সংসদ নির্বাচন দোড়গোড়ায়। এমন সময় দলবদল। প্রতিপক্ষের শক্তি বৃদ্ধির পাশাপাশি নির্বাচনী মাঠেও উত্তাপও বাড়ছে। জেলার রাজনীতিতে এমন একাধিক ঘটনা লক্ষ্য করা গেছে। বিভিন্ন উপজেলায় দলে দলে বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিচ্ছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। নির্বাচনের প্রাক্কালে এমন দলবদলে নির্বাচনেও প্রভাব পড়বে বলে মনের করেন রাজনৈতিক মহল।
বিভিন্ন উপজেলায় বিএনপি নেতাকর্মীরা পদত্যাগ করে আওয়ামী লীগে যোগদান করতে দেখা গেছে। একটি উপজেলায় মনোনয়ন বঞ্চিত নেতাদের কর্মীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগে দল থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগও করছেন। নির্বাচনের আগে পদত্যাগ করে আওয়ামী লীগে যোগদান এবং স্বেচ্ছায় দল থেকে পদত্যাগ করায় তৃণমূল বিএনপিতে অস্থিরতা বিরাজ করছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ কারণে প্রভাব নিয়ে শঙ্কিত খোদ বিএনপি প্রার্থীরা।
গত শুক্রবার বিকেলে সুনামগঞ্জ-২ আসনে বিএনপির অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগদান করেছেন। তারা স্থানীয় সাংসদ ও আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ড. জয়া সেনগুপ্তার হাত ধরে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করার অঙ্গিকার করেছেন। নির্বাচনের আগে বিএনপি নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ায় তাদেরকেও ফুল দিয়ে বরণ করা হয়েছে। সরমঙ্গল ইউনিয়নের জারুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত সমাবেশে যুবদল নেতা জুহান মিয়ার নেতৃত্বে অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী আওয়ামী লীগে যোগ দেন। এ ঘটনা স্থানীয় বিএনপির রাজনীতিতে বিরাট প্রভাব ফেলেছে বলে করেন নেতাকর্মীরা।
শনিবার দুপুরে জামালগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ালী উল্লাহ সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে এসে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন। এসময় তার সঙ্গে বিএনপির আরো কয়েকজন নেতাকর্মীও ছিলেন।
এদিকে শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে নিজের আইডি থেকে পোস্ট দিয়ে ছাতক উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক ও পৌর কাউন্সিলর জসিম উদ্দিন সোমেন পদত্যাগ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন গত ২২ বছর ধরে তিনি বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয়। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতারা এবার টাকার বিনিময়ে সুনামগঞ্জ-৫ আসনে মনোনয়ন দেওয়ায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, খালেদ জিয়াকে জেলে রেখে কেন্দ্রীয় নেতারা মনোনয়ন বাণিজ্য করে প্রকৃত নেতাদের মনোনয়ন দিচ্ছেনা। এ কারণে তিনি দল ছাড়ার ঘোষণা দেন। ওইদিন সন্ধ্যায় মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ এনে নেতাকর্মীরা ছাতক শহরে ঝাড়– মিছিলও করেছেন। এভাবে বিভিন্ন স্থানেই এমন বিশৃঙ্খল ঘটনা ঘটছে বিএনপিতে।
এদিকে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের একটি সক্রিয় গ্রুপ শিগ্রই বিএনপির রাজনীতি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে সমাবেশ করে তারা দলে যোগ দিবেন বলে জানা গেছে। তারা স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতাদের সঙ্গেও এ বিষয়ে কথা বলেছেন।
বিভিন্ন উপজেলায় নির্বাচনের আগে বিএনপির রাজনীতি ছেড়ে নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়ার ঘটনায় নির্বাচনে প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন অনেকে। নৌকার প্রার্থীর পক্ষে ভোট ও জমত বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল।
জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি নাদির আহমদ বলেন, নানা কারণে বিএনপি নেতাকর্মীরা ক্ষুব্দ ও বিব্রত। অভ্যন্তরীণ অনেক বিষয়ে মতদ্বৈততা থাকতে পারে। তাই বলে তুচ্চ কারণে দল ছেড়ে অন্য দলে যেতে হবে এমনটা মেনে নেওয়া যায়না। তিনি বলেন, বিএনপি দেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দল। এতে দলের কোন ক্ষতি হবেনা।
জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট বুরহান উদ্দিন বলেন, বিভিন্ন উপজেলা থেকে বিএনপির শীর্ষনেতারা পদত্যাগ করে শান্তি ও উন্নয়নের সংগঠন আওয়ামী লীগে যোগ দিচ্ছেন। স্বাধীনতার নেতৃত্ব দানকারী সংগঠনের পক্ষের ছাতাতলে আদর্শ মেনে যারাই আসবেন তাদেরকেই আমরা বরণ করব। তিনি বলেন, বিশ্বম্ভরপুরের স্বেচ্ছাসেবক দলের একটি বড় অংশ আওয়ামী লীগে যোগ দিতে যোগাযোগ করেছে। আমরা তাদের স্বাগত জানিয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী