,

Notice :

আ. লীগের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ : দিরাই-শাল্লায় নৌকার প্রার্থী হতে চান সাংবাদিক দীপক চৌধুরী

স্টাফ রিপোর্টার ::
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে সুনামগঞ্জ -২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী বিশিষ্ট সাংবাদিক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক দীপক চৌধুরী দুই উপজেলায় জনসংযোগ ও প্রচারণায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের উন্নয়নমুখি কর্মসূচিগুলো তুলে ধরছেন। প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রাম-গঞ্জ, হাট-মাঠের মানুষকে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বিশাল জনসভা বা শো-ডাউনের রাজনীতি নয়। এখন দরকার কেবল উন্নয়নের রাজনীতি। শুক্রবার ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে মনোনয়ন পত্র সংগ্রহ করেন দীপক চৌধুরী। তার মতে, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাস করি। রাজনীতির দিনবদলে শেখ হাসিনার নের্তৃত্বে আধুনিক বাংলাদেশ গড়তে সুনামগঞ্জ-২ আসনে দলীয় মনোনয়ন দিয়ে আওয়ামী লীগ আমাকে মূল্যায়ন করবে।
একাদশ সংসদ নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয়ে জানতে চাইলে দীপক চৌধুরী বলেন, ভাটি এলাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে মানুষের চাহিদা পূরণ করতেই বর্তমান সরকারকে পুনরায় মানুষ চায়। পাশাপাশি এটাও মনে রাখা দরকার, ভোটারগণ শুধু দিয়েই যাবে এটা হতে পারে না। তাদের প্রতি জনপ্রতিনিধির দায়িত্বও অনেকে। ব্যাপক বরাদ্দ ও সুযোগ থাকার পরও এখানকার শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় কাক্সিক্ষত উন্নয়ন হয়নি। আমি যদি সুযোগ পাই তাহলে প্রকৃত জনপ্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করবো। জনগণের সঙ্গে সকল ন্যায়ের পক্ষে থাকবো। তিনি আরো বলেন, সবচেয়ে বড় কথা আমি যেহেতু সাংবাদিক সুতরাং সাংবাদিকদের স্বার্থে কাজ করবো। সমাজের তৃণমূলের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ মফস্বল সাংবাদিকতা। সীমাবদ্ধতা থাকার পরও মফস্বল এলাকায় কর্মরত সৎ সাংবাদিক-সম্পাদকদের কেউ দমাতে পারে না। সুতরাং সুযোগ পেলে তাদের সীমাবদ্ধতাও সংসদে তুলে ধরবো। সাংবাদিক দীপক চৌধুরী তার গণসংযোগ প্রচার-প্রচারণায় গত ১০ বছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের ফিরিস্তি তুলে ধরছেন। স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির তীব্র ও কঠোর সমালোচনা করছেন। উঠান বৈঠকে দিচ্ছেন দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র সম্পর্কে জনসচেতনতামূলক বক্তব্য; একই সঙ্গে শিক্ষিত ও সাধারণ তরুণদের সরকারের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথাগুলো বলছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়কে তারুণ্য ও অগ্রগতির প্রতীক উল্লেখ করে তিনি বলেন, তরুণ-তরুণীদের স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার সময় এখন। বঙ্গবন্ধু সেটেলাইট উৎক্ষেপন থেকে শুরু করে এই সেক্টরের সাফল্যের পুরোভাগে রয়েছেন জয়। তাই ভোট দেওয়ার উৎসবমুখর পরিবেশ উপহার দিতে হবে তরুণ-তরুণীদের। তৃণমূলের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এর আগে তিনি কখনো রাজনীতিতে ছিলেন না। দিরাই-শাল্লার মানুষের ধারণা আগামী নির্বাচনে এই আসনে অপেক্ষাকৃত তরুণ বুদ্ধিদীপ্ত ও সাংবাদিক দীপক চৌধুরীই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন লড়াইয়ে এগিয়ে আছেন। এই সাংবাদিক বলেন, এখানে সিজনাল বার্ড’ প্রার্থী দেখতে চায় না এখানকার মানুষ। প্রবীণ রাজনীতিবিদ সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত মারা গেলে উপনির্বাচনে জয়া সেনগুপ্তা স্বামীর এই আসনে জয়লাভ করেন। নতুন প্রজন্মের কথা বিবেচনায় নিয়ে রাজনীতি করতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গণসংযোগের নামে মহড়ায় মানুষ আর আকৃষ্ট হচ্ছে না। নিজের কোনো উচ্চাভিলাষ নেই জানিয়ে মানুষের খেদমত করার সুযোগ চেয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ থেকে যাকে মনোনয়ন দেওয়া হবে তার পক্ষেই কাজ করতে হবে এই মানসিকতা থাকা দরকার। রাজনৈতিক বিশ্লেষক দীপক চৌধুরী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের অগ্রগতি-উন্নয়ন সম্বলিত প্রায় ৪০টি বিষয় তুলে ধরে ‘লিফলেটে’ যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, মৃত্যুদ- কার্যকর, পদ্মাসেতু নির্মাণ, বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি, নারীর ক্ষমতায়ন, মাতৃত্বকালীন ছুটি বৃদ্ধি, বিধবাভাতা প্রদান, ছিটমহল সমস্যার সমাধানসহ সকলক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার এগিয়ে চলেছে। তার সর্বশেষ রাজনৈতিক দুটি গ্রন্থ ‘দিনবদলে শেখ হাসিনা’ ও ‘কেন টার্গেট শেখ হাসিনা’ জনসংযোগকালে অনেকের হাতে তুলে দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী