,

Notice :

আশ্রয়হীনদের আশ্রয় পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার : জেলা প্রশাসক

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি ::
বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ১৯৯৭ সালে এই প্রকল্প শুরু করেছিলেন ও ১ লক্ষাধিক আশ্রায়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছিলেন। সকল আশ্রয়হীনদের আশ্রয় পাওয়া তাদের সাংবিধানিক অধিকার, প্রধানমন্ত্রী আশ্রয়ান প্রকল্প -২ এর আওতার বাহিরে যারা গৃহ পাননি, তাদের প্রত্যেকের জন্যই গৃহ বরাদ্দ চলমান আছে। আশ্রয় প্রকল্প পুরোপুরি বাস্তবায়ন হবে। জামালগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার দেওয়া ৫০০ জনের গৃহের চাহিদার মধ্যে ৯০ জনকে তালিকা ভুক্ত করা হয় এর মধ্যে ৬৩টি গৃহের চাবি আজ হস্তান্তর করা হচ্ছে ও বাকিগুলোও অচিরেই দেওয়া হবে। ফেনারবাঁক ইউনিয়নের আমানীপুর নদী ভাঙ্গনের শিকার বর্মন পাড়ার ২৭ টি অসহায় জেলে পরিবার কেউ আশ্রয় হীন প্রকল্পের আওতায় আনার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে সুপারিশ পাঠাবো। উপকার ভোগীদের পক্ষে যে ৩ জন আমাকে ফুলের তোড়া উপহার দিয়েছেন তা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌছে দেব। সরকারের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে সরকারকে সমর্থন ও সহযোগিতা করা আপনাদের দায়িত্ব।
বুধবার বিকেলে জামালগঞ্জ উপজেলার সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্প ২ এর আওতায় যার জমি আছে ঘর নেই, তার নিজ জমিতে নির্মিত গৃহের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আহাদ এসব কথা বলেন।
জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শামীম আল ইমরানের সভাপতিত্বে ও জামিল আহমেদ জুয়েল এর সঞ্চালনায় ‘‘আশ্রায়নের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সামছুল আলম তালুকদার, উপজেলা আ. লীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলী, ফেনারবাঁক ইউপি চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শাদাত হোসেন ভূইয়া । এসময় উপস্থিত ছিলেন জামালগঞ্জ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান রজব আলী , বেহেলী ইউপি চেয়ারম্যান অসীম তালুকদার, ভীমখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. দুলাল মিয়া, জামালগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. সাজ্জাদ মাহমুদ সাজিব , জামালগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি অঞ্জন পুরকায়স্থ প্রমুখ।
এর আগে জামালগঞ্জ সদর ইউনিয়নের শাহাপুর গ্রামের আশ্রয়ন প্রকল্পের উপকারভোগী সবুজ মিয়ার আশ্রয়ন গৃহ উদ্ভোধন ও পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক। চাবি হস্তান্তর শেষে প্রধান অতিথি উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে উপজেলা কৃষি বিভাগের আয়োজনে ২০১৮-২০১৯ মৌসুমে কৃষি প্রনোদনা কর্মসূচির আওতায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক ৪৯০ জন কৃষকদের মধ্যে ধান ভুট্টা, বীজ ও সার বিতরন করেন। এ সময় কৃষি অফিসার বদরুল আলম ও সম্প্রসারন কর্মকর্তা আব্দুর সাত্তার উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী