,

Notice :
«» সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রদীপ সিংহ কে বিদায়ী সংবর্ধনা «» বিদ্যুৎ ও জ্বালানিখাতে অবদানে পুরস্কার বিতরণ «» রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় খালেদা জিয়াকে জেলে আটকে রাখা হয়েছে –কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন «» পাকনা হাওরের : স্কিম গ্রহণ সংক্রান্ত জন-অংশগ্রহণমূলক মতবিনিময় «» জামালগঞ্জে নাশকতার মামলায় ৪ জন গ্রেফতার «» প্রতিবন্ধীদের পাশে দাঁড়ালেন জাহাঙ্গীর আলম «» পরিত্যক্ত গুদামঘরটি অপসারণ করুন «» বিএনপির রাজনীতি : আন্দোলনের ফাঁকে নির্বাচনী প্রচারণা «» ভিডিও কনফারেন্সে তাহিরপুরের শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী «» গ্রেনেড হামলার রায় প্রত্যাহারে বিএনপির কালো পতাকা মিছিল

আজ খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে মেডিক্যাল বোর্ড বসছে

সুনামকন্ঠ যেস্ক::
শারীরিক অসুস্থতা ও চিকিৎসা নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা ও বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ানোর পর অবশেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি হয়েছেন খালেদা জিয়া। শনিবার বিকাল ৩টা-৪১ মিনিটে কারাগার থেকে বিএসএমএমইউ নিয়ে আসার পর কেবিন ব্লকের ৬১২ নম্বর কক্ষে তাকে ভর্তি করা হয়। এদিকে ভর্তির পরপরই তাকে দেখতে আসেন তার চিকিৎসায় গঠন করা মেডিক্যাল বোর্ডের প্রধান ডা. আবদুল জলিল চৌধুরী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহ আল হারুন সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।
তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউ ভর্তি করা হয়েছে। হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী তার চিকিৎসায় মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। শনিবার (৬ অক্টোবর) হাসপাতালে আনার পর বোর্ডের প্রধান ইন্টারন্যাল মেডিসিন বিভাগের প্রধান অধ্যাপক আব্দুল জলিল চৌধুরী তাকে দেখেছেন। আগামীকাল রবিবার (৭ অক্টোবর) দুপুর ১ টায় তারা বোর্ড মিটিং করবেন। বোর্ডের পরামর্শ অনুযায়ী খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চলবে।’ তিনি বলেন, ‘হাসপাতালের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। কারারক্ষী, আনসার সদস্য ও পুলিশের সমন্বয় নিরাপত্তা দেওয়া হবে।’ খালেদা জিয়ার সঙ্গে হাসপাতালে পরিবার বা স্বজন বা গৃহপরিচারিকা কেউ থাকবেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কারাবিধি অনুযায়ী যা করার তাই করা হবে। কারাগারে তার সঙ্গে যারা ছিল, এখানেও তারা থাকবেন।’ প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের কারাদন্ড প্রাপ্ত হয়ে গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কারাগারে রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আদালতের অনুমতি নিয়ে সেদিন থেকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে থাকছেন তার ব্যক্তিগত পরিচারিকা ফাতেমা। বয়সজনিত বিভিন্ন রোগে ভোগার কারণে আদালত খালেদা জিয়াকে কারাগারে থেকে বিএসএমএমইউতে ভর্তির নির্দেশ দিয়েছেন গত বৃহস্পতিবার। বিএসএমএমইউ-এর ভিআইপি কেবিন। এই কেবিনেই চিকিৎসা নেবেন কারাবন্দি খালেদা জিয়া। প্রসঙ্গত: কারাগারে নেওয়ার পর থেকেই খালেদা জিয়াকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়ার দাবি জানান তার আইনজীবী ও দলীয় নেতারা। এক্ষেত্রে খালেদা জিয়ার পছন্দ ছিল বেসরকারি ইউনাইটেড হাসপাতাল। তবে সরকার কারাবিধি অনুযায়ী তাকে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার কথা জানায়। এক্ষেত্রে বিএসএমএমইউসহ কয়েকটি সরকারি হাসপাতালের প্রস্তাব দেওয়া হয় খালেদা জিয়াকে। কিন্তু, এর কোনটিতেই চিকিৎসা নিতে রাজি হননি তিনি। এ অবস্থায় এপ্রিল মাসের শুরুতে প্রথম তার জন্য মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করে সরকার। গত ৭ এপ্রিল এই বিএসএমএমইউতেই নিয়ে এসে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয় তার। তবে তখন গুরুতর কিছু পাওয়া যায়নি। কিন্তু, খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যগত সমস্যা ও হাসপাতালে ভর্তি বিষয়টি গত ৬ মাস ধরেই আলোচনায় ছিল। এ নিয়ে বিএনপি নেতাদের দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে সরকারি দল ও জোটভুক্ত দলগুলোর নেতারা প্রচুর রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়েছেন। এরপর গত ৯ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়ার চিকিৎসার দাবিতে আদালতে একটি রিট আবেদন করা হয়। একইদিন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে একটি দলটির ৮ জন সিনিয়র নেতা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে দেখা করে আবারও কারাবন্দি খালেদা জিয়ার পছন্দ অনুযায়ী রাজধানীর কোনও বিশেষায়িত হাসপাতালে তার চিকিৎসা করানোর অনুরোধ জানায়। একইসঙ্গে মেডিক্যাল টিম গঠনের অনুরোধও করে। এরপরই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় মেডিক্যাল বোর্ড গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এরপর গত ১৩ সেপ্টেম্বর পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করে বিএসএমএমইউ। বিশ্ববিদ্যালয়টির ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল জলিল চৌধুরীকে বোর্ডের প্রধান করে গঠন করা বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন, কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক হারিসুল হক, অর্থপেডিক সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবু জাফর চৌধুরী বীরু, চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. তারিক রেজা আলী ও ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক বদরুন্নেসা আহমেদ। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে গঠিত এই মেডিক্যাল বোর্ডের চিকিৎসকরা ১৫ সেপ্টেম্বর বিকালে পুরনো ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরনো কারাগারের দোতলার কারাকক্ষে গিয়ে ২০ মিনিট ধরে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। ১৬ সেপ্টেম্বর সেই পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রতিবেদন প্রকাশ করে বিএসএমএমইউ। তবে এ বোর্ডের গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে বিএনপি থেকে বারবার প্রশ্ন তোলা হয়। আদালতে এ সংক্রান্ত রিটের শুনানিতে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা জানান, মেডিক্যাল বোর্ডে সরকার সমর্থক স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) চিকিৎসকরা আছেন তাই খালেদা জিয়ার সুষ্ঠু চিকিৎসা সম্ভব নয়। তারা খালেদা জিয়ার পছন্দের চিকিৎসক দিয়ে তার চিকিৎসার দাবি তোলেন। এরপর গত ৪ অক্টোবর আদালত সরকারপন্থী স্বাচিপ ও বিএনপিপন্থী ড্যাব (ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) এর চিকিৎসকদের বাদ দিয়ে ওই তালিকায় থাকা দুজন নিরপেক্ষ চিকিৎসক ও খালেদা জিয়ার পছন্দের তিনজন চিকিৎসককে নিয়ে মেডিক্যাল বোর্ড গঠনের নির্দেশ দেন। তবে বিশেষায়িত হাসপাতালের ক্ষেত্রে কারাবিধি ও খালেদা জিয়ার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে বিএসএমএমইউতেই তাকে দ্রুত ভর্তির নির্দেশ দেন আদালত। এ আদেশ অনুসারে নতুন করে মেডিক্যাল বোর্ড গঠনের পর আজ শনিবার (৬ অক্টোবর) খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউ-এ ভর্তি করা হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী