,

Notice :

আ.লীগ-জাপা মুখোমুখি


বিশেষ প্রতিনিধি ::

জেলার গুরুত্বপূর্ণ সুনামগঞ্জ-৪ (সদর-বিশ্বম্ভরপুর) আসনে মহাজোটের মনোনয়ন নিয়ে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিরোধী দল জাতীয় পার্টি (জাপা)। জাপা নেতারা বলছেন, গেলবারের মতো এবার জোটের মনোনয়ন পাচ্ছেন বর্তমান সংসদ সদস্য। আর আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, এবার সদর আসন জাপাকে কিছুতেই ছাড়া দেয়া হবে না।
এদিকে জাপার এক নেতার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার ঘোষণার পরই শোনা যাচ্ছে আওয়ামী লীগ থেকেও এই আসনে দলীয় স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন কয়েকজন নেতা।
গত রোববার জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ পার্টির জেলা সম্মেলনে যোগ দিতে সুনামগঞ্জে আসেন। সম্মেলন উপলক্ষে শহরের সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জনসভায় বক্তব্য রাখেন তিনি। এসময় তিনি সুনামগঞ্জ-৪ আসনে বর্তমান সংসদ সদস্য অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ-কে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন। এরশাদ বলেন, পীর মিসবাহ’র মাধ্যমে জাপা দলীয় প্রার্থী ঘোষণার কাজ শুরু করেছে। সুনামগঞ্জের উন্নয়ন কর্মকা-ের কথা স্মরণ করে, এরশাদ আগামী নির্বাচনে লাঙ্গল মার্কায় পীর মিসবাহকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান।
জাপা নেতাকর্মীরা বলছেন, পীর মিসবাহ এখনো মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে সদর আসনে সংসদ সদস্যের দায়িত্ব পালন করছেন। এরশাদ তার মাধ্যমে দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করছেন, বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। এতে মহাজোটের প্রার্থীতার বিষয়টি একধাপ এগিয়ে গেছে। মহাজোট থাকলে পীর মিসবাহই এই আসনের জোটের প্রার্থী হবেন এবং গত ৫ বছরে তিনি উন্নয়ন কর্মকা- ও জনপ্রিয় নেতা হিসেবে সাধারণ মানুষের মন জয় করেছেন। সদর আসনে মহাজোটে তাঁর কোনো বিকল্প নেই।
অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা জাপা চেয়ারম্যানের দেয়া বক্তব্যকে অনেকটা ‘হাস্যকর’ বলে মন্তব্য করেছেন। তারা বলছেন, সদর আসনে উন্নয়ন হয়েছে বলে এরশাদ যে দাবি করেছেন তার কোন সত্যতা নেই। কয়েক দফায় আওয়ামী লীগ সরকার সুনামগঞ্জের দৃশ্যমান উন্নয়ন করেছে। উল্টো সদর আসনে জাপায় সংসদ সদস্য থাকায় সংসদীয় আসনের দুই উপজেলা উন্নয়নবঞ্চিত হয়েছে। সারাদেশ থেকে পিছিয়ে পড়েছে। আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা বঞ্চনা-লাঞ্ছনার শিকার হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে জাপাকে আগামী নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ সদর আসনটি ছেড়ে দেয়ার কোনো মানে হয় না। স্থানীয় আওয়ামী লীগ আসনটি ছাড় দেবে না।
দলীয় সমর্থন না পাওয়ায় সাবেক মন্ত্রী ইকবাল হোসেন চৌধুরীর পুত্র ইনান ইসমাম চৌধুরী স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার কানাঘুষার মধ্যেই গত কয়েক দিন ধরে শোনা যাচ্ছে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে জাপাকে আসনটি ছেড়ে দিলে আওয়ামী লীগের কয়েক নেতা নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। সম্ভাব্য প্রার্থীরা ইতিমধ্যেই শেখ হাসিনার উন্নয়ন কর্মকা-ের প্রচারণা নিয়ে মাঠে আছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে ইচ্ছুক নেতারা নিজেদের অনুসারী নিয়ে আলাপ-আলোচনাও শুরু করে দিয়েছেন।
জেলা আ.লীগ নেতা অ্যাড. মলয় চক্রবর্তী রাজু বলেন, আসন্ন নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ সদর আসনে নৌকা প্রতীকের দলীয় প্রার্থী আমরা চাই। বিষয়টি আমরা হাইকমান্ডকে জানিয়েছি। উন্নয়নের জন্য আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিকল্প নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী