,

Notice :
«» জেলা প্রশাসকের সাথে রিপোর্টার্স ইউনিটি নেতৃবৃন্দের সৌজন্য সাক্ষাৎ «» সরকারি প্রতিষ্ঠানে সেবার মান আরো বৃদ্ধি করতে হবে : জেলা প্রশাসক «» জগন্নাথপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে ভুল রিপোর্ট প্রদানের অভিযোগ «» কালনী নদী থেকে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির লাশ উদ্ধার «» স্বেচ্ছাসেবক লীগের আনন্দ মিছিল «» সরকারি কলেজের ৭৫ বছর পূর্তি উদযাপনে জরুরি সভা আজ «» দুর্গাপূজা উপলক্ষে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে «» নতুন এমপিওভুক্তির আবেদন ৯৪৯৮, চলছে যাচাই-বাছাই «» দ্বিমুখী ক্ষতি থেকে অভিভাবকদের রক্ষা করুন «» টাঙ্গুয়ার হাওর : নৌ মালিক-চালকদের কাছে জিম্মি পর্যটকরা

এবার সুনামগঞ্জে ‘হেলমেট নেই, জ্বালানি নেই’

স্টাফ রিপোর্টার ::
দেশের বিভিন্ন স্থানের পর এবার সুনামগঞ্জেও হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালকদের জ্বালানি তেল দিচ্ছে না পেট্রল পা¤পগুলো। বুধবার মোটরসাইকেল চালকদের হেলমেট না থাকলে জ্বালানি দিতে অপারগতা জানান পেট্রল পাম্পের সংশ্লিষ্টরা।
জানা যায়, সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ মোটরসাইকেল আরোহীদের হেলমেট না থাকলে তেলের পা¤পগুলোকে জ্বালানি না দেয়ার নির্দেশ দেয়। বুধবার থেকে সেই সেই নির্দেশনা বাস্তবায়ন শুরু হয়। ফলে হেলমেট নেই এমন বাইকচালকরা জ্বালানি পাচ্ছেন না।
নিরাপদ সড়কের আন্দোলনের অংশ হিসেবে বুধবার দুপুর ২টায় শহরের মল্লিকপুর এলাকার একটি পেট্রল পা¤েপ “নো হেলমেট – নো পেট্রল” কর্মসূচি পালন করে পুলিশ। এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন জেলা পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান। এ সময় সুনামগঞ্জের সকল পেট্রল পা¤েপ হেলমেটবিহীন আরোহীদের কাছে জ্বালানি বিক্রি না করতে অনুরোধ জানান পুলিশ সুপার। এরপর দুপুর থেকেই পেট্রল পা¤পগুলোতে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালকদের কাছে পেট্রল বিক্রি করছেননা পা¤প মালিকরা।
পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান বলেন, নিরাপদ সড়ক আমরা সবাই চাই, তাই প্রত্যেকের উচিত আগে নিজে সচেতন হওয়া। যারা মোটারসাইকেল চালান তারাই সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনাকবলিত হয়ে থাকেন। তাই মোটরসাইকেল চালকদেরকে অবশ্যই হেলমেট পরতে হবে। একটা জীবনের মূল্য অনেক, হেলমেট যারা পরবেন না তাদেরকে পেট্রল পা¤পগুলোতে যাতে পেট্রল না দেয়া হয় সে বিষয়ে আমরা নির্দেশনা দিয়েছি, এটি সচেতনতাবৃদ্ধিতে সহায়ক বলে মনে করি।
কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হায়াতুন্নবী, সহকারি পুলিশ সুপার মাহবুব, সহকারি পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, জেলার ১১ উপজেলার ১২ থানার অফিসার ইনচার্জ, ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তাসহ গোয়েন্দা শাখার দায়িত্বশীল কর্মকর্তাবৃন্দ।
মোটরসাইকেল চালক আরিফুল ইসলাম বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় জীবন বাঁচানোর জন্যই হেলমেটের ব্যবহার। যেটি আমাদের নিজেদেরই নেয়ার কথা- সেই উদ্যোগ নিয়েছে সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ। আমরা এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই। ভবিষ্যতে যেন ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া কেউ যানবাহনে তেল নিতে না পারে সেই ব্যবস্থাও করা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী