,

Notice :
«» ধর্মপাশায় বিদ্যুৎ সাব-স্টেশন নির্মাণকাজ দ্রুততার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে «» ৩০ তারিখ সারাদিন নৌকা মার্কায় ভোট দিন : এমএ মান্নান «» মহাজোটের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করুন : রনজিত চৌধুরী «» বিশ্বম্ভরপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের শতাধিক নেতাকর্মীরা স্বেচ্ছাসেবক লীগে যোগদান «» নৌকায় ভোট দিলে দেশে উন্নয়ন হয় : জয়া সেনগুপ্তা «» ছাতকে দুই জামায়াত নেতা গ্রেপ্তার «» ইতিহাসের তথ্যবিকৃতি কাম্য নয় «» মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রাখার দৃপ্ত শপথে বিজয় দিবস উদযাপিত «» জুবিলী ও সতীশ চন্দ্র স্কুলের কোচিংবাজ শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের চিঠি «» সুনামগঞ্জ-৪ আসনকে উন্নয়নে বদলে দেবো : পীর মিসবাহ

স্বেচ্ছাসেবক দল : নেতৃত্ব পেতে দৌড়ঝাঁপ

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নতুন কমিটি যেকোন সময় অনুমোদন করতে পারে কেন্দ্রীয় কমিটি। শেষ মুহূর্তে চলছে জোর তদবির ও লবিং। সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বলছেন, জেলা বিএনপি’র নেতাদের কারণে বার বার আটকে যাচ্ছে কমিটি, তবে ঈদের আগেই যেকোন মুহূর্তে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কমিটি অনুমোদন দেবেন।
সংগঠন সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালে সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল্লাহ আল নোমানকে আহ্বায়ক, নুরুল ইসলাম সাজু ও মো. শাহজাহানকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে কমিটি অনুমোদন করে কেন্দ্র। গত পাঁচ বছরে এই আহ্বায়ক কমিটি জেলার প্রায় ১৫ ইউনিট সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি দিয়েছে। সরকারবিরোধী আন্দোলনে অন্য সংগঠনের চেয়ে রাজপথে অনেকটা বেশি সক্রিয় ছিল স্বেচ্ছাসেবক দল। আহ্বায়কসহ অনেকেই জেল খেটেছেন সরকারবিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে। সম্প্রতি কেন্দ্রীয় বিএনপি সরকারবিরোধী আন্দোলন জোরদার করতে যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ছাত্রদলের জেলা পর্যায়ে নতুন করে কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে। ইতিমধ্যে সুনামগঞ্জে যুবদল ও ছাত্রদলের কমিটি হয়েছে। নতুন মুখ যুবদল ও ছাত্রদলের নেতৃত্বে এসেছেন। এই দুই সংগঠনের পর স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি গঠনের তোড়জোড় শুরু হয়েছে। পদপ্রত্যাশীরা গত ১৫দিন ধরে রাজধানী ঢাকায় দৌড়ঝাঁপ করছেন। জেলা বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা একই কারণে ঢাকায় অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে। রোববার কমিটি দেয়ার কথা থাকলেও পরে সুনামগঞ্জের নাম বাদ পড়ে যায়। বুধবার রাতে কমিটি দেয়া হতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।
নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হওয়ার চার জনের নাম আলোচনায় রয়েছে। এর মধ্যে সভাপতি হওয়ার দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে আছেন বর্তমান কমিটির আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ আল নোমান। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে সভাপতি হওয়ার জন্য জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন সাবেক ছাত্রদল নেতা মোনাজ্জির হোসেন। সাধারণ সম্পাদকের পদের জন্য জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন ও মো. সামছুজ্জামানের নাম আলোচনায় রয়েছে। এই চারজনের মধ্যে যেকোন দুইজন কমিটির নেতৃত্ব পেতে যাচ্ছেন -এমন ধারণা তাদের অনুসারীদের।
জেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ইকবাল হোসেন বলেন, ছাত্রদলের নেতৃত্বে থাকাকালীন সব সময় রাজপথে, সংগঠনের জন্য সক্রিয় ছিলাম, সরকারবিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে মামলা, হামলার শিকার হয়েছি। আশা করছি কেন্দ্র আমাকে মূল্যায়ন করবে।
জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, আমি দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে সংগঠনের নেতাকর্মীরা সরকারবিরোধী আন্দোলনে রাজপথে সক্রিয় আছে। সবচেয়ে বেশি আমার সংগঠনের নেতাকর্মীরা মামলার শিকার হয়েছে। আমি নিজেও জেল খেটেছি। স্বল্প সময়ের মধ্যে জেলার ১৫টি ইউনিটে কমিটি করেছি। আশা করছি, দু’এক দিনের মধ্যে নতুন কমিটি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ অনুমোদন করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী