,

Notice :

সুনামগঞ্জ-৪ : নবীন-প্রবীণদের মনোনয়ন লড়াই

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ-৪ (সদর-বিশ্বম্ভরপুর) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন যুদ্ধে প্রবীণদের সঙ্গে নতুনরাও আছেন। নির্বাচন ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে সম্ভাব্য প্রার্থীরা গণসংযোগ ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছেন। তবে প্রার্থীদের প্রায় সবাই বলছেন- সবাই মনোনয়ন চান, তবে দল মনোনয়ন না দিলেও যাকে নৌকা প্রতীক দেয়া হবে তাঁর পক্ষেই তাঁরা কাজ করবেন।
আ.লীগ সূত্রে জানা গেছে, জেলার গুরুত্বপূর্ণ সুনামগঞ্জ-৪ (সদর-বিশ্বম্ভরপুর) আসনে দলীয় মনোনয়ন চান চার প্রার্থী। তাঁরা হলেন- জেলা আ.লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, জেলা আ.লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট, জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবীর ইমন এবং জেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জুনেদ আহমদ।
আলহাজ্ব মতিউর রহমান এই আসন থেকে এর আগে উপনির্বাচনে জয়ী হয়েছিলেন। ব্যারিস্টার ইমন সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাড. রইছ উদ্দিন আহমদের পুত্র এবং জুনেদ আহমদ সাবেক সংসদ সদস্য জননেতা আব্দুজ জহুরের পুত্র। মতিউর রহমান ও নূরুল হুদা মুকুট দু’জনই আ.লীগের প্রবীণ নেতা। অন্যদিকে ব্যারিস্টার ইমন ও জুনেদ আহমদ জেলা আ.লীগের তরুণ নেতা। নবীন-প্রবীণ এই চার নেতা মাঠে থাকায় অনেকটা জমে উঠেছে মনোনয়ন লড়াই। মনোনয়ন পাবার জন্য ইতিমধ্যে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট। মঙ্গলবার তিনি বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু করেন। জেলা আ.লীগের সভাপতি মতিউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবীর ইমন অনেক দিন আগে থেকেই নির্বাচনী মাঠে প্রচারণায় আছেন। অন্যদিকে জুনেদ আহমদও নির্বাচনী এলাকার দুই উপজেলায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রাখছেন। বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ করছেন।
জেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জুনেদ আহমদ বলেন, জেলা সদরের আসনটি বরাবরই আ.লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। কিন্তু জাতীয় পার্টিকে আসনটি ছেড়ে দেয়ায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে পিছিয়ে পড়েছে আসনটির দু’টি উপজেলা। সারাদেশের যে উন্নয়ন হচ্ছে তার তুলনায় কাক্সিক্ষত উন্নয়ন হচ্ছে না সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলায়। উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে এই আসনে আ.লীগের বিকল্প নেই। আমাকে মনোনয়ন দেয়া হলে বিজয়ী হওয়ার পাশাপাশি উন্নয়নের রোল মডেলে পরিচিত করবো দু’টি উপজেলাকে। আমি নির্বাচনের করার লক্ষ্যে গণসংযোগ চালাচ্ছি। নেতাকর্মীরাও নির্বাচন করার জন্য আমাকে চাপ দিচ্ছেন।
মঙ্গলবার বিশ্বম্ভরপুরে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নূরুল হুদা মুকুট বলেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসনটিতে আমি প্রার্থী হতে চাই। দল থেকে আমাকে মনোনয়ন দিলে আমার বিজয় নিশ্চিত। সদর আসন জাপা’র দখলে থাকায় কাক্সিক্ষত উন্নয়ন হচ্ছে না। উল্টো আ.লীগের নেতাকর্মীরা নানা কারণে অবহেলার শিকার হচ্ছেন। শুধু সদর আসনের মানুষ নন সারা জেলার মানুষ আমাকে ভালোবাসে, তারা আমার সঙ্গে আছে। আমি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে সাধ্যমত উন্নয়নের চেষ্টা করছি।
জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবীর ইমন গণমাধ্যমে আগেই জানিয়েছেন, সর্বশেষ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন তিনি পেয়েছিলেন। আসন্ন নির্বাচনেও তিনি মনোনয়নের ব্যাপারে আশাবাদী। সেই লক্ষ্যেই তিনি নির্বাচনী গণসংযোগ, প্রচারণা ও সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- তুলে ধরতে সাধারণ মানুষের কাছে যাচ্ছেন এবং তাদের সহযোগিতা চাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী