সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৭:০০ পূর্বাহ্ন

Notice :

২৬ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন যাঁরা

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জ জেলার ২৬ ইউনিয়নে বিচ্ছিন্ন দু’একটি ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত তিন উপজেলা সুনামগঞ্জ সদর, দোয়ারাবাজার ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সুনামগঞ্জ সদর ও দোয়ারাবাজার উপজেলায় ভোটগ্রহণ চলাকালে কয়েকটি কেন্দ্রে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে পরিস্থিতি ঘোলাটে হয়নি। ২৬টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আ.লীগ ৭, বিএনপি ৬, জাপা ১, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ১ এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ১১টিতে জয়ী হন।
শনিবার সদর উপজেলার কোরবান নগর, মোল্লাপাড়া, জাহাঙ্গীরনগর, সুরমা, লক্ষণশ্রী, গৌরারং, কাঠইর, মোহনপুর ও রঙ্গারচর ইউনিয়নে ভোট অনুষ্ঠিত হয়।
এর মধ্যে কোরবান নগরে আনারস মার্কায় ৪৫৭৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন মো. আবুল বরকত। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আ.লীগের প্রার্থী কোহিনূর আলম (নৌকা) পেয়েছেন ২৬৪৭ ভোট।
মোল্লাপাড়া ইউনিয়নে ৪৮৭৩ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী নূরুল হক। নৌকা প্রতীকে আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. সোবাহান পেয়েছেন ৪০৮৭ ভোট।
লক্ষণশ্রী ইউপিতে ৩৯৯৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন বিএনপির প্রার্থী আব্দুল ওয়াদুদ। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী ইয়াকুব বখত ২৭৯০ ভোট পেয়েছেন।
গৌরারং ইউনিয়নে ধানেরশীষ নিয়ে ৬৪৪০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন ফুল মিয়া। তাঁর নিকটতম প্রার্থী জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী আব্দুল ওয়াহাব (খেজুর গাছ) পেয়েছেন ৪২৪৭ ভোট।
মোহনপুর ইউপিতে ৩৩৯৩ ভোট পেয়ে বিজয় নিশ্চিত করেছেন জাতীয়পার্টির প্রার্থী নুরুল হক (লাঙ্গল)। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মঈনউল হক (নৌকা) পেয়েছেন ৩০৪৫ ভোট।
কাঠইর ইউনিয়নে নির্বাচিত হয়েছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রার্থী মুফতি শামছুল ইসলাম (খেজুরগাছ)। তাঁর প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা ১৮৭৯। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির ফারুক মেনন (লাঙ্গল) পেয়েছেন ১৩২৭ ভোট।
রঙ্গারচর ইউনিয়নে ৩৩৪৯ ভোট পেয়ে জয় পেয়েছেন বিএনপির প্রার্থী আব্দুল হাই (ধানের শীষ)। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আবুল কালাম আজাদ (নৌকা) পেয়েছেন ২৫৬৮ ভোট।
অন্যদিকে জাহাঙ্গীর নগর ইউপিতে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হয়েছেন আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী মোকছেদ আলী। তিনি পেয়েছেন ৪২৩৪ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্রপ্রার্থী আব্দুল কাদির পেয়েছেন ৩৭১৬ ভোট।
সুরমা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়েছিলেন আব্দুস ছত্তার ডিলার। তিনি ৬৮২৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আমির হোসেন রেজা (আনারস) ৫৮৭২ ভোট পেয়েছেন।
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে আ.লীগ ৩, বিএনপি ১ ও স্বতন্ত্র ৪ প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন।
উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান মো. মাসুদ মিয়া নৌকা প্রতীকে ৭ হাজার ৭৫০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. রাজা মিয়া আনারস প্রতীকে ৫ হাজার ৩২১ ভোট পেয়েছেন।
পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী মো. নুরুল হক আনারস প্রতীকে ৫ হাজার ৩৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান মো. জগলুল হায়দার নৌকা প্রতীকে ৪ হাজার ১১৭ ভোট পেয়েছেন।
পূর্ব পাগলা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আক্তার হোসেন চশমা প্রতীকে ৩ হাজার ২৭৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম বিএনপি মনোনীত মো. আবু তাহের ধানের শীষ প্রতীকে ২ হাজার ৮০০ ভোট পেয়েছেন।
পাথারিয়া ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত মো. আমিনুর রশিদ আমিন ধানের শীষ প্রতীকে ৩ হাজার ৪৭২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. আবুল ফয়েজ নৌকা প্রতীকে ২ হাজার ৭০৫ ভোট পেয়েছেন।
শিমুলবাঁক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. মিজানুর রহমান জিতু নৌকা প্রতীকে ৪ হাজার ১৫৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী মো. আব্দুল্লাহ মিয়া চশমা প্রতীকে ২ হাজার ৯৬৩ ভোট পেয়েছেন।
দরগাপাশা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. মনির উদ্দিন নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৭২৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত ও বর্তমান চেয়ারম্যান মো.সুফি মিয়া ধানের শীষ প্রতীকে ৪ হাজার ৯৪৩ ভোট পেয়েছেন।
পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী নুর কালাম আনারস প্রতীকে ২ হাজার ৭৩২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. রিয়াজুল ইসলাম নৌকা প্রতীকে ২ হাজার ৩৬৪ ভোট পেয়েছেন।
পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম মোটর সাইকেল প্রতীকে ১ হাজার ৯৮২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত মো. জসিম উদ্দিন নৌকা প্রতীকে ১ হাজার ২৯৭ ভোট পেয়েছেন।
দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা ইউপিতে আওয়ামী লীগের খন্দকার মামুনুর রশিদ, দোহালিয়া ইউপিতে আওয়ামী লীগের আনোয়ার মিয়া আনু, লক্ষ্মীপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আমিরুল ইসলাম, নরসিংপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী একেএম আইয়ুবুর রহমানী, বাংলাবাজার ইউপিতে আওয়াম লীগের বিদ্রোহী জসিম উদ্দিন রানা, মান্নারগাঁও ইউপিতে বিএনপির আবু হেনা আজিজ, দোয়ারাবাজার সদর ইউপিতে বিএনপির আব্দুল বারী, বোগলাবাজার ইউপিতে বিএনপির আরিফুল ইসলাম জুয়েল, পান্ডারগাঁও ইউপিতে বিএনপির বিদ্রোহী ফারুক আহমদ জয়ী হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ভিডিও গ্যালারী

ভিডিও গ্যালারী